Home পার্বত্য বার্তা সড়ক ডুবে সারাদেশের সঙ্গে বান্দরবানের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

সড়ক ডুবে সারাদেশের সঙ্গে বান্দরবানের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

92
0
বান্দরবান-কেরানীহাট সড়কের বাজালিয়া এলাকায় পানি বেড়ে সড়ক তলিয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন।


নিজস্ব প্রতিবেদক, অবিরাম ভারি বর্ষণে বান্দরবানের সাঙ্গু নদের পানি বিপদ সীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে মঙ্গরভার সকাল থেকে বান্দরবান-কেরানীহাট সড়কের বাজালিয়া এলাকায় সড়কে পানি ওঠায় সারা দেশের সঙ্গে বান্দরবানের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। জেলার সাঙ্গু নদ ও মাতামুহুরী নদীর পাড়ে বসতি গড়া অনেক বাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে বলে জানা গেছে।
জানা গেছে, গতকাল বিকেলে জেলার চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার বাজালিয়ার ইউনিয়নের বান্দরবান-কেরানীহাট সড়কের বুড়ির দোকান অংশের সড়ক পানিতে তলিয়ে যায়। এতে ছোট যানের চলাচল বন্ধ হলেও ভারি যান চলাচল করছিল। পানির পরিমাণ বেড়ে মঙ্গলবার সকালে বাজালিয়া এলাকায় সড়কের উপর দিয়ে হাটু থেকে বেড়ে কোমর সমান পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এর ফলে বান্দরবান-কেরানীহাট সড়কে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।


অন্যদিকে বান্দারবান-রাঙ্গামাটি সড়কেও যান চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে বলে জানা গেছে। প্রবল বর্ষণের ফলে এ সড়কসহ বান্দরবান-কেরানীহাট সড়কেও অনেক অংশে পাহাড়ের অংশ ধসে এবং কোনো কোনো স্থানে সড়কের উপর গাছ পড়ে যোগাযোগ বিঘ্নিত হচ্ছে।


এর সত্যতা নিশ্চিত করে সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকোশলী সজীব আহমেদ জানান, ভারী বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় সড়কে ধসে পড়া মাটি ও ভেঙ্গে পড়া গাছ সরানো সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থায় বান্দরবান-রোয়াংছড়ি ও থানচিতে ঝুঁকি নিয়ে চলছে পরিবহন। তবে যোগাযোগ সহজ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বিভিন্ন স্থানে কার্যালয়ের জনবল পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।
এদিকে, বিপদসীমা অতিক্রম করে সাঙ্গু নদ ও মাতামুহুরী এবং বাঁকখালী নদীর পানি বেড়ে চলেছে। এতে অন্তত সহ¯্রাধিক ঘরবাড়ি পানিতে তলিয়ে যেতে পারে বলে ধারণা করছে প্রশাসন।
অন্যদিকে গতকাল থেকে জেলার আশ্রয় কেন্দ্রেগুলোতে ক্ষতিগ্রস্ত পারবারের মানুষজন আশ্রয় নিয়েছেন। পাহাড়ের পাদদেশে বাস করা লোকজনদের আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নিয়েছে প্রশাসন। আশ্রয় নেয়া লোকজনদের জন্য খাবারের ব্যস্থা করেছে পৌরসভা ও জেলা প্রশাশাসন।


এ প্রসঙ্গে জেলা প্রশাসক দাউদুল ইসলাম জানান, পাহাড় ধস ও জলাবদ্ধতায় ক্ষতিগ্রস্ত কয়েকশ পরিবারকে আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। সেখানে তাদের যাবতীয় সহায়তা দেয়া হচ্ছে।