Home জীবনযাপন রিক্সাচালক মনজু মিয়ার মহত্ত্ব

রিক্সাচালক মনজু মিয়ার মহত্ত্ব

179
0

মনজু মিয়া। বয়স ৩০ বছর। পেশায় রিক্সাচালক। হাতিরঝিল থানাধীন মধুবাগ মসজিদের পাশে ছোট্র একটি ভাড়া বাসায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে থাকে। দুই মেয়ে এক ছেলে ও স্ত্রীকে নিয়ে পাঁচজনের সংসারে নুন আনতে পান্তা ফুরানোর অবস্থা। শারীরিক অসুস্থতার কারণে রিক্সাও চালাতে পারে না ভালো মতো। যেদিন রিক্সা নিয়ে বের হয় না, অভুক্ত থাকে তার পরিবার।

০৬.০১.২০২০ ইং তারিখ সন্ধ্যার পর রিক্সা নিয়ে বের হয় মনজু মিয়া। রাত ১০.৪০ ঘটিকার দিকে শান্তি নগর পীর সাহেবের গলি এলাকায় রাস্তায় পড়ে থাকা একটি কালো পার্টসের দিকে নজর আটকে যায় মনজু মিয়ার। আশেপাশে কোন লোকজন না থেকে রিক্সা থামায় সে। পার্টসটি হাতে নিয়ে ভিতরে একটি মোবাইল পায় সে। আইফোন সিক্স এস। সিলভার কালার।
আশেপাশের লোকজনদের জিজ্ঞেস করে কারো মোবাইল ফোন বা ফোনসহ পার্টস হারিয়েছে কি না। দোকানগুলোতে জিজ্ঞেস করে তারা এরকম কোন সংবাদ পেয়েছে কি না। কেউ কোন তথ্য দিতে পারলো না।
মোবাইল ফোনটি অন করার চেষ্টা করে সে। ব্যর্থ হয়। পথচারীদের ৪-৫ জনকে অনুরোধ করে ফোনটি অন করতে। তারাও ব্যর্থ। পথচারীদের একজন অফারও করে বসলো সাত হাজার টাকার বিনিময়ে ফোনটি কিনতে চায়।

পীর সাহেবের গলি থেকে শান্তিনগর মোড়। দুপাশে ৪-৫ বার চক্কর দিতে থাকলো মনজু মিয়া। যদি মোবাইল ফোনের মালিককে পাওয়া যায়।
রাত ১২.০০ টার দিকে বাসায় ফেরে মনজু মিয়া। মোবাইল ফোন কুড়িয়ে পাওয়ার কথা জানায় স্ত্রীকে। স্ত্রীর পরামর্শে কুড়িয়ে পাওয়া মোবাইল
থেকে সিমকার্ড খুলে ফেলে সে। তারপর পাশের বাসার একজনের মোবাইল ফোন ধার নিয়ে সেই ফোনে সিমকার্ডটি ঢুকিয়ে মোবাইল অন করে।
দুই মিনিট পরেই কল আসে। মনজু মিয়া কল রিসিভ করে জানায়, ‘রাত পৌনে এগারোটার দিকে কালো পার্টিসহ একটি মোবাইল ফোন কুড়িয়ে পেয়েছে সে। ফোনটিতে চার্জ না থাকায় সিমকার্ডটি প্রতিবেশীর মোবাইলে ঢুকিয়েছে পার্টসহ ফোনটি মূল মালিককে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য’।
স্তব্ধ হয়ে গেলেন সেই ব্যক্তি। তার শ্বশুরের মোবাইল ফোন শান্তিনগর এলাকায় রাতে হারিয়ে গেছে।
তার ঘোর না কাটতেই মনজু মিয়া তাকে জানালো, ‘হাতিরঝিল থানাধীন মধুবাগ মসজিদের পাশে গেলেই মনজু মিয়াকে পাওয়া যাবে। ফোনটি তিনি সে মূল মালিককে ফেরত দিয়ে ভারমুক্ত হতে চায়’।

এটাও কি সম্ভব!
হাতিরঝিল থানায় ফোন করেন সেই ব্যক্তি। হাতিরঝিল থানার ডিউটি অফিসার এসআই আরিফকে বিষয়টি জানালে এসআই আমানত মধুবাগ মসজিদের পাশে মনজু মিয়ার বাসায় যান। মনজু মিয়া কুড়িয়ে পাওয়া পার্টস, আইফোনটি এসআই আমানতকে বুঝিয়ে দেন।

রাতেই মনজু মিয়ার বাসায় এসে ধন্যবাদসহ পুরস্কৃত করতে চান মেবাইল ফোনের মালিক। এ কাজের জন্য কোন ধন্যবাদ বা পুরস্কার গ্রহনে অস্বীকৃতি জানায় মনজু মিয়া।

বেঁচে থাকুক মনজু মিয়ারা। বেঁচে থাকুক মানবতা।

DC Tejgaon – DMP

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here